ডার্ক ওয়েব প্রযুক্তি ব্যবহার করে পুলওয়ামায় হামলা

Pulwama darkweb attack ,Darkweb,attack,India,web
Pulwama darkweb attack

পুলওয়ামা কাণ্ডে তদন্তে এমন সব চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসে তা দেখে যে কারও এমনটাই মনে হতে পারে। সিআরপিএফের কনভয়ে এমন নিখুঁতভাবে টাইমিং করে কিভাবে ধাক্কা মারতে পারল বিস্ফোরক বোঝাই সেডান গাড়ি? কিভাবে জঙ্গিরা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত ট্র্যাক রাখতে পারছিল সিআরপিএফের কনভয় কখন কোন দিক দিয়ে যাচ্ছে। এনআইএ তদন্তে জানা গিয়েছে ডার্ক ওয়েব প্রযুক্তি ব্যবহার করেই পুলওয়ামা সিআরপিএফ কনভয়ে হামলা চালিয়েছিল জয়েশ। সিম কার্ড নয় গোয়েন্দাদের নজর এড়াতে বেতার তরঙ্গের সাহায্য সাষ্কেতিক আদান প্রদান করেছিল জঙ্গিরা ।রাওয়ালপিন্ডির সেনা হাসপাতাল শুয়েই হামলার ব্লু- প্রিন্ট তৈরি করেছিল জয়েশ প্রধান মাসুদ আজহার।হামলার দায়িত্ব দেওয়া হয় মাসুদ ঘনিষ্ঠ কামরান গাজী কে। এই অভিযানের জন্য আদিল আহমেদ কে আত্মঘাতী জঙ্গি হিসেবে বেছে নিয়েছিল কামরান । পাকিস্তান থেকে এতবড় হামলার ছক গোয়েন্দাদের কাছে যাতে ফাঁস না হয় তার জন্য আগাগোড়া সতক ছিল জঙ্গিরা। এনআইএ সূত্রে জানা গিয়েছে গোয়েন্দা নজরদারি এড়াতে পিয়ার টু পিয়ার সফটওয়্যার এর সাহায্যে ওয়াইএসএম এসের মাধ্যমেই নিজেদের মধ্যে সাম্প্রতিক বার্তা আদান প্রদান করছে জঙ্গিরা। হামলার পর সেরকমই দুটি বার্তা উদ্ধার করেছেন গোয়েন্দারা।
একটিতে লেখা ছিল জয়েশ ই-মোহাম্মদের অভিযান সফল হয়েছে। অন্য বার্তা লেখার ছিল হামলায় অসংখ্য ভারতীয় জওয়ানের মৃত্যু।ধ্বংস একাধিক গাড়ি। উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন বেতার তরঙ্গ ব্যবহার করে দুই ব্যক্তির মধ্যে সাম্প্রতিক ভাষায় ওয়াইএসএমএস পাঠানো হয়। যার মূল মাধ্যম হলো রেডিও সেট। সিডিএমএ মোবাইল হ্যান্ডসেট এর সঙ্গে যুক্ত থাকে একটি রেডিও সেট। আর সেই রেডিও সেটের বেতার তরঙ্গ ওয়াইফাই হিসাবে ব্যবহার করে বার্তা পাঠানো হয়। এর ফলে গোপনীয়তা রক্ষা করা সম্ভব হয়। তাছাড়া গোয়েন্দাদের রাডারেও তা ধরা পড়ে না। সেনা গোয়েন্দাদের টেলি কমিউনিকেশন বিশেষঞ্জদের সূত্রে জানা গিয়েছে ওয়াইএসএমএস হলো অতি উচ্চ রেডিও। ওই প্রযুক্তির সাহায্যে এনক্রিপটেড মেসেজ পাঠানো সম্ভব। সহজ ভাষায় একটি রেডিও সেটের সঙ্গে সিম কার্ডহিন একটি মোবাইলকে সংযুক্ত করা হয়।তবে সেই রেডিও সেটএর মধ্যে থাকতে হবে ওয়াই ফাইয়ের সুবিধা। সেনা বিশেষজ্ঞদের দাবি এই প্রযুক্তি সবচেয়ে বেশি কার্যকর যখন বার্তা প্রেরক এবং গ্রাহকের রেডিও সেট মোটামুটি দৃষ্টিসীমার মধ্যে থাকে সরলরেখার থাকে এবং মাঝখানে কোনও বড় বাধা থাকে না ।
2012 সাল থেকে সক্রিয় ছিল ডার্ক ওয়েব প্রযুক্তি। জঙ্গিরা ওই প্রযুক্তির ওপর আরও এনক্রিপশন যুক্ত করে সেটি আরও উন্নত করে নিয়েছে বলে দাবি সেনা গোয়েন্দাদের। পাক ভূখণ্ডে সক্রিয় জঙ্গি সংগঠনগুলি এই প্রযুক্তির অত্যাধুনিক সংরক্ষণ ব্যবহার করে যার অন্যতম লস্কর এবং জয়েশ 2015 সালে সাজ্জাদ আহমেদকে গ্রেপ্তারের পর ওয়াইএসএমএস প্রযুক্তি সামনে আসে তবে এখনো তার কোড উদ্ধার করতে পারেনি ভারতীয় সেনা। গোয়েন্দারা স্বীকার করেছেন উচ্চকম্পনাস্ক ব্যবহার করে মেসেজ পাঠানো হয় বলে মোবাইল রেডিও টেলিফোন বার্তার উপর নজরদারি করতে যে প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয় তা দিয়ে ওই বার্তা ধরা সম্ভব নয়। সম্ভবত তাই পুলওয়ামা হামলায় আগাম কোনো আজ পাননি গোয়েন্দারা।

Post a Comment

0 Comments