মোবাইলের জন্য সেরা পাঁচটি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার

The-best-five-video-editing-software-for-mobile,android


ইউটিউব, ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম কিংবা অন্য যে কোন প্লাটফর্মের জন্য ভিডিও তৈরির ফ্রি অ্যাপস্ খুঁজছেন? আপনার জন্য এখানে সেরা ৫টি অ্যাপস্ এর তালিকা দেয়া হল যেগুলো দিয়ে আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোন দিয়ে অনায়াসে ভিডিও করতে পারবেন, এডিট করতে পারবেন, এমনকি শেয়ার করতে পারেন। শুধু ভিডিওই নয়, এই অ্যাপগুলো দিয়ে আপনি ছবিও তুলতে পারবেন এবং সেই ছবিগুলো দিয়ে ঘরে বসে ইনকামও করতে পারবেন।


এমন অনেকেই রয়েছেন যারা ইউটিউবের জন্য ভিডিও তৈরি করে লক্ষ লক্ষ ডলার আয় করছেন । এমনকি, ইউটিউবে এমন কিছু জনপ্রিয় চ্যানেল আছে, যাদের ইনকামের অংকটা শুনলে আপনি চমকে যাবেন। এ-সব ভিডিওর মাঝে বেশ কিছু ভিডিও রয়েছে যেগুলো মোবাইল ফোনের অ্যাপস্ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে।

১. Action Movie FX

আপনি যদি আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোন দিয়ে সাধারণ ভিডিও শুটিং ছাড়াও অ্যাকশন মুভির স্টাইলে ভিডিও শুটিং করতে চান, তবে এই অ্যাপটি আপনার জন্য অপরিহার্য্য। আপনার শুট করা সাধারণ ভিডিওর সঙ্গে ‘মিজাইল অ্যাটাক’, গুলি করে কিংবা বোমা ফাটিয়ে যে কোন গাড়ি বা বিমান ভাঙচুর’, ‘স্পাইডার স্ট্রাইক সহ যে কোন অ্যাকশন মুভির স্টাইল যোগ করতে পারবেন।
সেটিং এবং নেভিগেশনসহ অ্যাপটির ইন্টারফেস এত সহজ করে তৈরি করা হয়েছে যে কোন মানুষ এই অ্যাপ দিয়ে দারুণ দারুণ ভিডিও তৈরি করতে পারবে, নানা রকম ইফেক্ট দিতে পারবে, ইচ্ছে মত সাউন্ড যোগ করতে পারবে। মুভি লাভারদের কথা চিন্তা করে বিনামূল্যে ব্যবহারের জন্য এই অ্যাপটি তৈরি করেছে হলিউডের একটি মুভি প্রোডাকশন হাউজ।

২. Microsoft Hyperlapse Mobile


একটানা ৪৫ মিনিট ফুটেজ ধারণ করতে পারা এই অ্যাপস্ টি বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ এর সহজ ফাংশনালিটির জন্য। আপনি যখন Hyperlapse ওপেন করবেন, তখন মাত্র একটাই অপশন পাবেন; আর তা হচ্ছে রেকডিং। ভিডিও ফুটেজ নিতে গিয়ে আপনার হাত যদি বেশিরভাগ সময় কাঁপতে থাকে, তাহলে এই অ্যাপস্ টিই আপনার জন্য সবচেয়ে উপকারি হবে।
কারণ, এই অ্যাপে ‘In house stabilisation’ নামের একটা ফিচার রয়েছে যা আপনার হাত কাঁপতে থাকলেও আপনার ফুটেজকে কম্পন থেকে রক্ষা করবে। এই অ্যাপে ধারণ করা ভিডিওর প্রিভিউকে 1xথেকে 12x রেঞ্জের মধ্যে সেট করে ইনস্টাগ্রাম কিংবা ফেসবুকে শেয়ার করতে পারবেন, আপলোড করতে পারবেন ইউটিউবে।

৩. Vine – Video Editing Mobile App


হলিউডের বিখ্যাত মুভি ডিরেক্টর Andy Warhol এই মর্মে একটা ভবিষৎ বানী দিয়েছিলেন যে, ভবিষ্যতে যে কেউ চাইলেই বিখ্যাত হতে পারবে তবে তা মাত্র সাড়ে সেকেন্ড থেকে ১৫ মিনিটের জন্য। এ উক্তিটিকে সামনে রেখেই তৈরি করা হয়েছে Vine। এটি একটি মজার ভিডিও মেকিং অ্যাপ যা আপনাকে  সেকেন্ড থেকে ১৫ মিনিট ভিডিও লুপিং এবং অনলাইনে শেয়ার করার সুযোগ করে দিচ্ছে।
তবে আপনি যদি ভাবেন যে, এই অ্যাপে শ্যুট করা ভিডিওর স্থায়িত্ব হবে সর্বোচ্চ ১৫ মিনিট, তাহলে ভুল করবেন। এই অ্যাপ দিয়ে ভিডিও তৈরি করে বিখ্যাত হয়ে গিয়েছেন এবং উল্লেখযোগ্য অ্যামাউন্ট আয় করছেন এ রকম ৩০ জনের তালিকা প্রকাশ করেছে বিজনেস ইনসাইডার।

৪. Stop Motion Studio

স্টপ মোশন স্টুডিও আপনাকে ছবি তোলা আর সে ছবিকে আপনার শুট করা ভিডিওতে ইমপোর্ট করে একত্র করে শ্লো মোশন ইফেক্ট তৈরি করে দারুণ দারণ ভিডিও তৈরি করার অপশন দিচ্ছে। আর সেই ভিডিওতে যে কোন ধরণের ব্যাকগ্রাউন্ড যুক্ত করা, এমনকি আপনার নিজস্ব অডিও বর্ণনাসহ আরো অনেক কিছু এডিট করার অপশনও রয়েছে।


৫. Video Editor For Free


অনেকের কাছেই চরম জনপ্রিয় অ্যাপ এটি। দ্রুতগতির কাজ এবং সহজে ইউজ করা যায় বলে এই অ্যাপটি অন্যান্য অনেক অ্যাপের থেকে এগিয়ে রয়েছে। শুধু ভিডিও শুটিংই নয়, এই অ্যাপ দিয়ে আপনি আপনার ভিডিও কাটা, মার্জ করা, ব্যাগগ্রাউন্ড মিউজিক যুক্ত করাসহ সব ধরণের এডিটিং এর কাজ করতে পারবেন।
মোবাইলে ভিডিও তৈরির ফ্রি অ্যাপস্ গুলো থেকে আপনার মোবাইল ফোনের ব্র্যান্ডের উপর ভিত্তি করে যে একটি অ্যাপ বাচাই করুন। আজই শুরু করে দিন মজার মজার ভিডিও শুটিং আর ওই অ্যাপ দিয়েই এডিটিং করে ফেসবুক, ইনস্টাগ্রামে শেয়ার বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করুন, সেই সাথে ইউটিউবে আপলোড করে ঘরে বসে আয় করুন।

Post a Comment

0 Comments